৭২ হুরী বিষয়ক হাদিসের সত্যতা

এই নিবন্ধটির মাধ্যমে স্বর্গের ৭২ হুরী বিষয়ক হাদিসসমূহের সত্যতা নিরীক্ষণ করা হয়েছে।

ভূমিকা

যদিও কোরআনসহ অন্যান্য ধর্মগ্রন্থসমূহ থেকে ৭২ হুরী সম্পর্কে বহু তথ্য পাওয়া যায়, তথাপি কিছু ব্যক্তি ভ্রান্ত ধারনা পোষণ করেন যে, হুরীগণের সঠিক সংখ্যা শুধু একটি মাত্র দুর্বল হাদিসেই উল্লেখ করা হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে এই উদ্ধৃতি সমূহ বিভিন্ন স্তরের সত্যতাবিশিষ্ট বিভিন্ন ধরনের হাদিস থেকে আমরা জানতে পারি।

২ হুরী সম্পর্কিত হাদিস উদ্ধৃতিসমূহ

শাইখ জিবরীল হাদ্দাদ হলেন একজন প্রসিদ্ধ হাদিস বিশেষজ্ঞ (মুহাদ্দিস),[1] যিনি শরিয়তের উপর বিশ্বের নেতৃস্থানীয় কর্তৃপক্ষের অন্যতম একজন ব্যক্তি হিসেবে স্বীকৃত।[2] ২০০৯ সালে অনুষ্ঠিত একটি উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তাঁর নাম “বিশ্বের সবচাইতে প্রভাবশালী ৫০০ মুসলিমগণের” একটি তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিলো এবং তাঁকে “পাশ্চাত্যের ঐতিহ্যবাহী ইসলামের সর্বাপেক্ষা অবিমিশ্র কণ্ঠস্বরের অধিকারী” হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছিলো।[1] ২০০৫ সালে তাঁর দ্বারা জারিকৃত ফতোয়া থেকে নিম্নোলিখিত তথ্যসমূহ সংগ্রহ করা হয়েছে।[3]

মুসনাদে আহমদ ইবনে হাম্বল এবং সুনানে আল তিরমিজী হতে বর্ণিত

“For the Shahid in the Divine presence there will be six qualities: [1] he will be forgiven from the first moment his blood is spilled; [2] he shall see his seat in Paradise and be protected against the punishment of the grave; [3] he shall be safe from the Greatest Terror [the rising of the dead]; [4] he shall be crowned with the diadem of dignity, one ruby of which is worth more than the entire world and its contents; [5] he shall be coupled with seventy-two spouses from the wide-eyed maidens of Paradise; and [6] he shall be granted to intercede for seventy of his relatives.”
Musn_d Ahmad ibn Hanbal , Sunan al-Tirmidhi
বঙ্গানুবাদ:
“মহান আল্লাহর নিকট শহীদগণ মোট ছয়টি মর্যাদার অধিকারী হবেন। যথা:
১। তাঁর শরীর থেকে প্রথম রক্তক্ষরণ শুরু হওয়ার সাথে সাথেই তাঁকে ক্ষমা করে দেওয়া হবে।
২। বেহেশতে তাঁর জন্যে নির্ধারিত স্থান টি প্রদর্শন করানো হবে এবং সকল ধরনের কবর আযাব থেকে তাঁকে সুরক্ষিত করা হবে।
৩। আখিরাতে পুনরুত্থানের দিনে তথা সবচাইতে মহাভীতির দিনে তাঁকে নিরাপদে রাখা হবে।
৪। তাঁর মস্তকে সম্মানের তাজ পরানো হবে; যার এক একটি ইয়াকুত পাথর দুনিয়া এবং এর অভ্যন্তরস্থ যে কোন কিছু অপেক্ষা অধিক মুল্যবান হবে।
৫। বেহেশতে তাঁকে ৭২ জন আয়তলোচনা হুরীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করা হবে। এবং
৬। তাঁর সত্তরজন নিকটাত্মীয়ের জন্যে তাঁর সুপারিশ কবুল করা হবে।”
মুসনাদ আহমদ ইবনে হাম্বল, সুনানে আল-তিরমিজী
মুসনাদ আহমদ ইবনে হাম্বল, সুনানে আল-তিরমিজী খণ্ড ৩, বহি ২০, হাদিস ১৬৬৩

উপরিউক্ত হাদিসটি একটি সন্তোষজনক, নির্ভরযোগ্য এবং একক শৃঙ্খলবিশিষ্ট (হাসান সহীহ গারীব) হাদিস

Abu Sa`id al-Khudri said, Allah be well-pleased with him: The Messenger of Allah said, upon him blessings and peace: “The humblest of the People of Paradise shall have eighty thousand servants and seventy-two wives. A palace of pearl and peridot (a pale green variety of chrysolite; used as a gemstone) and sapphire shall be erected for him as wide as the distance between al-Jabiya [a valley about 70 kms. East of Makka] and San`a’ [in Yemen].”
Sunan al-Tirmidhi Vol. IV, ch. 21, hadith 2687
বঙ্গানুবাদ:
আবু সাইদ খুদরী (রাঃ) হতে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, জান্নাতীগণের মধ্যে সর্বনিম্ন মর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তিও পাবেন আশি হাজার ভৃত্য এবং বাহাত্তর জন সঙ্গিনী। মুক্তা, ইয়াকুত এবং সবুজাভ ও নিলাভ বর্ণের মুল্যবান পাথর দ্বারা অলংকৃত এমন একটি বিশাল প্রাসাদ উক্ত ব্যক্তির জন্যে নির্মাণ করা হবে, যেটি আল-জাবিয়া থেকে সান’আ এর মধ্যবর্তী দূরত্ব এর সমপরিমান দূরত্ব পর্যন্ত বিস্তৃত হবে। ”
সুনানে আল-তিরমিজী খণ্ড ৪, অধ্যায় ২১, হাদিস ২৬৮৭
সুনানে আল-তিরমিজী খণ্ড ৪, বহি ১২, হাদিস ২৫৬২

ইবনে মাজাহ, আল বা’থ ওয়াল নুশুর এ আল বায়হাকী এবং কামিল এ ইবনে আ’দি দ্বারা জ্ঞাপিত

Abu Umama said, Allah be well-pleased with him: The Messenger of Allah said, upon him blessings and peace: “None is made to enter Paradise by Allah Most High except Allah Most High shall marry him to seventy-two wives, two of them from the wide-eyed maidens of Paradise and seventy of them his inheritance from the People of Hellfire, not one of them but her attraction never lags nor his arousal ever wanes.”
Ibn Majah, Ibn `Adi in the Kamil, and al-Bayhaqi in al-Ba`th wal-Nushur
বঙ্গানুবাদ:
আবু উমামা (রহঃ) হতে বর্ণিত, রসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, বেহেশতে প্রবেশকারী ব্যক্তিগণের মধ্যে এমন কোন ব্যক্তি থাকবেন না, যাকে মহান আল্লাহ তায়ালা ৭২ জন নারীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করবেন না। উক্ত ৭২ জনের মধ্যে দু’জন হবেন আয়তলোচনা বেহেশতী হুরি আর ৭০ জন হবেন জাহান্নামীদের থেকে ওয়ারিসী সুত্রে প্রাপ্ত। উক্ত নারীগণের আকর্ষণ কখনোই নিঃশেষ হবে না এবং পুরুষদের যৌনাকাঙ্ক্ষা ও কখনোই হ্রাস পাবে না।”
ইবনে মাজাহ, আল বা’থ ওয়াল নুশুর এ আল বায়হাকী এবং কামিল এ ইবনে আ’দি

আল-জামি’ আল-সাগির (৭৯৮৯) এ আল সুয়ুতি উপরিউক্ত হাদিসটির শৃঙ্খলকে হাসান হাদিস হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

সিফাত আল-জান্নাহ, দু’আফা এ আল-উকায়লি এবং আবু বকর আল-বাজ্জার এর মুসনাদে জ্ঞাপিত

Anas said, Allah be well-pleased with him: The Messenger of Allah said, upon him blessings and peace: “The servant in Paradise shall be married with seventy wives.” Someone said, “Messenger of Allah, can he bear it?” He said: “He will be given strength for a hundred.”
Sifat al-Janna, al-`Uqayli in the Du`afa’, and Musnad of Abu Bakr al-Bazzar
বঙ্গানুবাদ: আনাস (রহঃ) হতে বর্ণিত, রসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, আল্লাহর মনোনীত বান্দাদেরকে বেহেশতে ৭০ জন নারীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করা হবে। কেউ একজন জিজ্ঞাসা করলেন, হে আল্লাহর রসুল, উক্ত ব্যক্তি কি এরুপ সহ্য করতে সক্ষম হবেন? তিনি উত্তর দিলেন, তাঁকে একশত জন পুরুষের সমপরিমান শক্তি প্রদান করা হবে।”
সিফাত আল-জান্নাহ, দু’আফা’ এ আল-উকাইলি এবং আবু বকর আল-বাজার এর মুসনাদ

সুনানে আল-কুবরা এবং মুসনাদ আহমদ ইবনে হাম্বল এ জ্ঞাপিত

Anas said, Allah be well-pleased with him: The Messenger of Allah said, upon him blessings and peace:“The servant in Paradise shall be married with seventy wives.” Someone said, “Messenger of Allah, can he bear it?” He said: “He will be given strength for a hundred.”
From Zayd ibn Arqam, Allah be well-pleased with him, when an incredulous Jew or Christian asked the Prophet, upon him blessings and peace, “Are you claiming that a man will eat and drink in Paradise??” He replied: “Yes, by the One in Whose hand is my soul, and each of them will be given the strength of a hundred men in his eating, drinking, coitus, and pleasure.”
Sifat al-Janna, al-`Uqayli in the Du`afa’, and Musnad of Abu Bakr al-Bazzar
বঙ্গানুবাদ: আনাস (রহঃ) হতে বর্ণিত, রসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “আল্লাহর মনোনীত বান্দাদেরকে বেহেশতে ৭০ জন নারীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করা হবে। কেউ একজন জিজ্ঞাসা করলেন, হে আল্লাহর রসুল, উক্ত ব্যক্তি কি এরুপ সহ্য করতে সক্ষম হবেন? তিনি উত্তর দিলেন, তাঁকে একশত জন পুরুষের সমপরিমান শক্তি প্রদান করা হবে।
জাইদ ইবনে আরকাম (রহঃ) হতে বর্ণিত, যখন একজন সংশয়াপন্ন ইহুদী বা খৃস্টান ব্যক্তি মুহাম্মদ (সাঃ) কে জিজ্ঞাসা করলেন, আপনি কি এটাই দাবী করছেন যে, বেহেশতে একজন ব্যক্তি আহার এবং পান করতে সক্ষম হবে?’ তিনি উত্তর দিলেন, ’অবশ্যই; যার হাতে আমার প্রান রয়েছে, সেই মহান সত্ত্বার শপথ; তাদের প্রত্যেককেই আহার, পান, সঙ্গম এবং উল্লাস করা সহ প্রতিটি কাজেই একশত জন পুরুষের সমপরিমান শক্তি প্রদান করা হবে।”
সিফাত আল-জান্নাহ, দু’আফা’ এ আল-উকাইলি এবং আবু বকর আল-বাজার এর মুসনাদ

ইবনে আবি শায়বা, ইবনে হিব্বান এবং আল হাকিম উপরিউক্ত হাদিসটিকে সহিহ বলে ঘোষনা করেছেন।

মুসনাদ আহমদ ইবনে হাম্বল এ জ্ঞাপিত

Abu Hurayra said, Allah be well-pleased with him: The Messenger of Allah said, upon him blessings and peace: “The humblest of the People of Paradise in rank shall have seven levels and as he will be on the sixth, below the seventh, he will have three hundred servants, every morning and evening three hundred dishes of gold shall be brought before him, every dish carrying something the other does not. He will taste pleasure as sharply with the first dish as he will with the last. He shall say, ‘My Lord! If you gave me permission, I would feed all the people of Paradise and water them from what I have and nothing should go missing from it.’ He will most certainly have seventy-two wives from the wide-eyed maidens of Paradise, the couch of only one of whom is as wide as a square mile on earth.”
Musnad Ahmad ibn Hanbal
বঙ্গানুবাদ: আবু হুরায়রা (রাঃ) হতে বর্ণিত, “রসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, বেহেশতে সর্বনিম্ন মর্যাদাসম্পন্ন ব্যক্তিও সাতটি স্তর লাভ করবেন। সপ্তম স্তরের নিম্নে, ষষ্ঠ স্তরে থাকাকালীন সময়ে তিনি পাবেন তিনশত ভৃত্য। প্রতিদিন সকালে ও সন্ধ্যায় তাঁর সামনে তিনশত স্বর্ণপাত্র উপস্থাপন করা হবে। একটি স্বর্ণপাত্রে যে সামগ্রী থাকবে, সেটি অন্য কোন স্বর্ণপাত্রে থাকবে না এবং উক্ত ব্যক্তি প্রথম স্বর্ণপাত্র হতে যে পরিমান তৃপ্তিলাভ করবেন; সর্বশেষ স্বর্ণপাত্র হতেও একই পরিমান তৃপ্তিলাভ করবেন। তিনি বলবেন, ‘হে আল্লাহ, যদি তুমি অনুমতি প্রদান করো, তাহলে আমাকে প্রদত্ত উপকরনসমূহ থেকে সম্পূর্ণ তৃপ্তিলাভের পরও অবশিষ্টাংশ হতে সমগ্র বেহেশতবাসীকে খাদ্য ও পানীয় সরবরাহ করতে সক্ষম হবো। নিঃসন্দেহে তিনি জান্নাতি হুরিদের মধ্য হতে ৭২ জন আয়তলোচনা নারী কে স্ত্রী হিসেবে লাভ করবেন; যাদের একেকজনের বিশ্রামস্থলের প্রশস্ততা পৃথিবীর এক বর্গ মাইলের সমপরিমান হবে।”
মুসনাদ আহমদ ইবনে হাম্বল

আল-‘আযামা তে আবু আল-শায়েখ এবং আল-বা’থ ওয়াল-নুশুর এ আল বায়হাকী দ্বারা জ্ঞাপিত

Ibn Abi Awfa said, Allah be well-pleased with him: The Messenger of Allah said, upon him blessings and peace: “Every man from the People of Paradise shall be married off to four thousand virgins, eight thousand slave-girls, and one hundred wide-eyed maidens of Paradise. They shall all meet him within every seven days. They shall say with their exquisite voices no creature has ever heard the like before: ‘We are the everlasting women, we never grow old, we are the refined women, we never grow sour, we are the ever-pleased women, we never anger, we are the sedentary ones, we never travel away, blessings to him who is for us and we are for him!’”
Abu al-Shaykh in al-`Azama and al-Bayhaqi in al-Ba`th wal-Nushur
বঙ্গানুবাদ: ইবনে আবি আওফা(রহঃ) হতে বর্ণিত, “রসুলুল্লাহ(সাঃ) বলেছেন, জান্নাতবাসী প্রত্যেক ব্যক্তি কে চার হাজার কুমারী, আট হাজার দাসী এবং একশত আয়তলোচনা হুরির সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করে দেয়া হবে। তারা একে একে সকলেই উক্ত ব্যক্তির সঙ্গে প্রতি সাত দিনের মধ্যে মিলিত হবেন। তাঁরা এত নিখুঁত কণ্ঠে কথা বলবে, যা কোন সৃষ্টি কোনদিন শ্রবণ করে নি। তাঁরা বলবেন, “আমরা শাশ্বত নারী, আমরা কখনোই বৃদ্ধ হবো না, আমরা পরিশীলিত নারী, আমরা কখনোই অপ্রীতিকর হবো না, আমরা সর্বদা পরিতুষ্ট থাকবো, আমরা কখনোই রাগান্বিত হবো না, আমরা সর্বক্ষণ নিজস্ব স্থানে উপবিষ্ট থাকবো, কখনোই আমরা দূরে সরে যাবো না, তাঁর প্রতি আলাহর রহমত বর্ষিত হোক; যিনি আমাদের জন্যে এবং আমরা যার জন্যে!”
আল-‘আযামা তে আবু আল-শায়েখ এবং আল-বা’থ ওয়াল-নুশুর এ আল বায়হাকী

মা’রিফাত আল-সাহাবা এবং তারিখ দিমাশক এ জ্ঞাপিত

Hatib ibn Abi Balta`a said, Allah be well-pleased with him: I heard the Messenger of Allah say, upon him blessings and peace: “The believer in Paradise shall be married off to seventy-two women, seventy women of the hereafter and two women of the women of this world.”
Abu al-Shaykh in al-`Azama and al-Bayhaqi in al-Ba`th wal-Nushur
বঙ্গানুবাদ: হাতিব ইবনে আবি বালতা’আ (রহঃ) হতে বর্ণিত, “আমি রসুলুল্লাহ (সাঃ) কে বলতে শুনেছি, “জান্নাতে ঈমানদার ব্যক্তিবর্গ কে ৭২ জন নারীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করানো হবে; তন্মধ্যে ৭০ জন পরকাল জগতের নারী এবং দু’জন হবেন দুনিয়াবী জগতের নারী।”
আল-‘আযামা তে আবু আল-শায়েখ এবং আল-বা’থ ওয়াল-নুশুর এ আল বায়হাকী

আল-সগির ও আল-আওসাত, সিফাত আল জান্নাহ এবং তারিখ বাগদাদ এ আল-খতিব_দ্বারা_জ্ঞাপিত

Abu Hurayra said, Allah be well-pleased with him: It was asked, “Messenger of Allah, do we reach our women in Paradise?” He replied, “A man will reach in a single day one hundred virgins.”
Al-Tabarani in al-Saghir and al-Awsat, Abu Nu`aym in Sifat al-Janna, and al-Khatib in Tarikh Baghdad
বঙ্গানুবাদ: আবু হুরায়রা (রহঃ) হতে বর্ণিত, “একদা রসুলুল্লাহ (সাঃ) কে জিজ্ঞাসা করা হল, “আমরা কি বেহেশতে নারীদের সাথে মিলিত হতে সক্ষম হবো?” তিনি উত্তর দিলেন, ‘একজন ব্যক্তি একদিনের মধ্যেই একশত জন কুমারী নারীর সাথে মিলিত হতে সক্ষম হবে।”
আল-সগির ও আল-আওসাত এ আল-তেহরানী, সিফাত আল-জান্নাহ তে আবু নু’য়াম এবং তারিখ বাগদাদ এ আল-খতিব

ইবনে আল-কায়িম এর হাদী আল-আরওয়াহ এবং ইবনে কাসিরের আল-ফিতান ওয়াল-মালাহিম অনুসারে আবু দীয়া’ আল-মাকদিসী উপরিউক্ত হাদিস টি কে সহিহ বলে ঘোষনা করেছেন। জাওয়া’য়িদ তারিখ বাগদাদ (সেকশন ১০০) এ খালদুন আল-আহদাব উক্ত হাদিস টি কে সহিহ হিসেবে বিবেচনা করেছেন।

ইবনে আব্বাস ও কিছুটা একইরুপ বক্তব্য দিয়েছেন। আবু ইয়া’লা তাঁর মুসনাদে বর্ণনাকারীগণের একটি উত্তম শৃঙ্খল (তথা হাসান হাদিস) উল্লেখ করেছেন; যেমনটি আল-হায়থামী ও তাঁর মাজমা’ আল-জাওয়া’য়িদ এ উল্লেখ করেছেন।

৭২ হুরি সম্পর্কিত অন্যান্য হাদিসসমূহ

বিভিন্ন সহিহ বর্ণনায় মুহাম্মদ উল্লেখ করেছেন, জাহান্নামের অধিকাংশ অধিবাসীই হবে নারী। তবে নিম্নোক্ত হাদিস অনুসারে:

I heard the Messenger of Allah say, upon him blessings and peace: “I entered Paradise and saw that most of its dwellers were women.”
Narrated by al-Bayhaqi in al-Ba`th wal-Nushur and Ibn `Asakir in Tarikh Dimashq
বঙ্গানুবাদ:আমি রসুলুল্লাহ (সাঃ) কে বলতে শুনেছি, “আমি বেহেশতে প্রবেশ করলাম এবং লক্ষ্য করলাম যে, সেখানে অধিকাংশ অধিবাসীই নারী।”
আল-বা’থ ওয়াল-নুশুর এ আল-বায়হাকী এবং তারিখ দিমাশকে এ ইবনে ‘আসাকীর হতে বর্ণিত

শাইখ জিব্রিল হাদ্দাদ উল্লেখ করেছেন, উপরিউক্ত হাদিসে উদ্ধৃত ‘নারী’ বলতে জান্নাতে শহীদগণের সঙ্গিনীদের বোঝানো হয়েছে।

হাদিসের সত্যতার উপর ফতোয়াসমূহ

শাইখ মুহাম্মদ সালিহ আল-মুনাজ্জিদের তার “Islam Q&A” নামক একটি ওয়েবসাইট এ ৭২ হুরি সম্পর্কিত একটি হাসান হাদিস উল্লেখ করেছেন, যেখানে বলা হয়েছে:

It was reported in the hadeeth of al-Miqdaam ibn Ma’di Karb that the Prophet (peace and blessings of Allaah be upon him) said:“The martyr (shaheed) has seven blessings from Allaah: he is forgiven from the moment his blood is first shed; he will be shown his place in Paradise; he will be spared the trial of the grave; and he will be secure on the Day of the Greatest Terror (the Day of Judgement); there will be placed on his head a crown of dignity, one ruby of which is better than this world and all that is in it; he will be married to seventy-two of al-hoor al-‘iyn; and he will be permitted to intercede for seventy of his relatives.”
According to another report, the martyr has six blessings from Allaah. According to other reports (the number is) six, or nine, or ten.
(Narrated by al-Tirmidhi, who said it is a hasan hadeeth. Also narrated by Ibn Maajah in al-Sunan, by Ahmad, by ‘Abd al-Razzaaq in al-Musannaf, by al-Tabaraani in al-Kabeer, and by Sa’eed ibn Mansoor in al-Sunan).
The six blessings of the martyrs
Shaykh Waleed al-Firyaan, Islam Q&A, Fatwa No. 8511
বঙ্গানুবাদ:আল-মিকদাম ইবনে মা’দী কার্ব এর হাদিস হতে বর্ণিত, রসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন:
“আল্লাহর পক্ষ হতে শহীদগণের জন্যে সাতটি আশীর্বাদ রয়েছে: তাঁর প্রথম রক্তপাত হওয়া মাত্রই তাঁর সমস্ত গুনাহ ক্ষমা করে দেওয়া হবে, বেহেশতে তাঁর জন্যে নির্ধারিত স্থান টি পরিদর্শন করানো হবে, কবর আজাব থেকে তাঁকে মুক্তি দেওয়া হবে, হাশরের ময়দানের ন্যায় প্রচণ্ড ভীতিকর দিনেও তাঁকে সুরক্ষিত রাখা হবে, তাঁর মাথায় এমন একটি সম্মানের মুকুট পরানো হবে; যার একেকটি পদ্মরাগমণি পৃথিবী এবং এর মধ্যস্থিত যে কোন বস্তু অপেক্ষা উত্তম হবে, তাঁকে ৭২ জন হুরির সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ করানো হবে, এবং তাঁর নিকটাত্মীয়গণের মধ্য হতে ৭০ জনের জন্যে শাফায়াৎ করার অনুমতি দেওয়া হবে।”
অন্য একটি বিবরণ অনুসারে, শহীদগণের জন্যে ছয়টি আশীর্বাদ রয়েছে। এছাড়া অন্যান্য বিবরণে ছয়টি বা নয়টি অথবা দশটি আশীর্বাদের কথা উল্লেখ করা হয়েছে।
(উক্ত হাদিসটি আল-তিরমিজি অনুসারে একটি হাসান হাদিস হিসেবে বর্ণিত হয়েছে। আল-সুনানে ইবনে মাজাহ, আহমদ, আল-মুসান্নাফ এ ‘আবদ আল-রাজ্জাক, আল কাবীর এ আল-তাবারানী এবং আল-সুনানে সাঈ’দ ইবনে মানসুর ও অনুরুপ বর্ণনা দিয়েছেন।)
শহীদগণের জন্য ছয়টি আশীর্বাদ
শায়েখ ওয়ালিদ আল-ফিরিয়ান, Islam Q&A, ফতোয়া নং ৮৫১১

শাইখ জিব্রিল হাদ্দাদ তার “SunniPath” নামক একটি অনলাইন ইসলামী একাডেমী তে নিম্নোক্ত হাদিস টি উল্লেখ করেছেন:

The stronger hadiths indicate that the Believers shall have two wives, in Bukhari and Muslim from Abu Hurayra, from the Prophet, upon him blessings and peace: Each man among them shall have two wives, the marrow of each of the two wives’ shanks will be seen glimmering under the flesh, and there is not in all Paradise a single unmarried man. They will have up to a hundred concubines in Paradise while the Shuhada shall have seventy-two wives, numbers indicating abundance rather than an exact quantity, and Allah knows best.
How Many Wives Will The Believers Have In Paradise?
Shaykh Gibril Haddad, SunniPath.com, Question ID:4828
বঙ্গানুবাদ:অধিকতর নির্ভরযোগ্য হাদিসসমূহে উল্লিখিত হয়েছে যে, ঈমানদার ব্যক্তিবর্গ জান্নাতে দু’জন স্ত্রী পাবেন। বুখারি এবং মুসলিম শরীফে আবু হুরায়রা হতে বর্ণিত, নবীজী(সাঃ) বলেছেন, প্রত্যেক ব্যক্তির দু’জন স্ত্রী থাকবে, উক্ত স্ত্রীদ্বয়ের প্রত্যেকের পায়ের অস্থি এবং মাংস এত স্বচ্ছ হবে যে, অস্থিমজ্জা পর্যন্ত দৃষ্টিগোচর হবে। জান্নাতে একজন পুরুষও অবিবাহিত থাকবে না এবং তাদের প্রত্যেকের একশতজন পর্যন্ত উপপত্নী থাকবে আর শহীদগণের থাকবে ৭২ জন স্ত্রী। উক্ত সংখ্যাটির মাধ্যমে শুধুমাত্রই প্রাচুর্যতা বোঝানো হয়েছে; সঠিক সংখ্যা সম্পর্কে একমাত্র আল্লাহ ই অবগত আছেন।
স্বর্গে বিশ্বাসীদের কাছে কয়জন স্ত্রী থাকবে?
শাইখ জিব্রিল হাদ্দাদ, SunniPath.com, প্রশ্ন নং ৪৮২৮

মুফতি ইব্রাহিম দেশাই তাঁর “AskImam” নামক একটি ওয়েবসাইটে কয়েকটি হাসান এবং সহিহ হাদিস উল্লেখ করেছেন। যেমন :

The mention of 70 or more Hoors for the Shaheed is reported by several Sahaaba (Radhiallaahu Anhum), of them are:1. Sayyiduna Miqdaad ibn Ma?adikarib (Radhiallaahu Anhu) recorded by Imaam Tirmidhi in his Sunan (Hadith1663). Imam Tirmidhi has classified this Hadith as Sahih (authentic).
2. Sayyiduna Ubaadah ibn Thaabit (Radhiallaahu Anhu) recorded by Imaam Ahmad in his Musnad (Hadith17117), Imaam Bazzaar in his Musnad and Imaam Tabrani in his al-Majmual Kabir. (Majma-uz-zawaaid vol.5 pg.293). Hafiz Munzhiri (ra) has classified the chain of narrators of Musnad Ahmad as Hasan (sound) . (al-Targheeb vol.2 pg.320). And Haafiz al-Haythami (ra) has mentioned that the narrators of Musnad Ahmad and Tabrani are all reliable.
and Allah Ta’ala Knows Best
Moulana Muhammad ibn Moulana Haroon Abbassommar
FACULTY OF SPECIALTY IN HADITH
The number of Hoors (70 or more) in Jannah for a Shaheed or a Jannathi is fixed by which hadeeth, and in which book
Mufti Ebrahim Desai, Ask-Imam, Question No. 7007, October 29, 2002
বঙ্গানুবাদ:শহীদগণের জন্যে নির্ধারিত ৭০ বা ততোধিক হুরি এর ধারনা টি বিভিন্ন সাহাবা (রহঃ) গণ হতে বর্ণিত হয়েছে:১। সাঈদুনা মিকদাদ ইবনে মা’আদীকারিব (রাঃ) এর বক্তব্যটি ইমাম তিরমিজি তাঁর সুনানে (হাদিস ১৬৬৩) লিপিবদ্ধ করেছেন। ইমাম তিরমিজি উক্ত হাদিস টিকে সহিহ হিসেবে শ্রেণীবদ্ধ করেছেন।
২। ২। সাঈদুনা উবাদাহ ইবনে সাবিত (রাঃ) এর বক্তব্যটি ইমাম আহমদ তাঁর মুসনাদে (হাদিস ১৭১১৭), ইমাম বাজ্জার তাঁর মুসনাদে এবং ইমাম তাবরানী তাঁর আল-মাজমুয়াল কবিরে (মাজমা-উজ-যাওয়ায়িদ, খণ্ড ৫, পৃষ্ঠা ২৯৩) লিপিবদ্ধ করেছেন। হাফিজ মুঞ্জিরী (রাঃ) মুসনাদ আহমদে উদ্ধৃত উক্ত হাদিস টিকে হাসান হাদিস হিসেবে শ্রেণীবদ্ধ করেছেন (আল-তারগীব খণ্ড ২, পৃষ্ঠা ৩২০)। এবং হাফিজ আল-হায়থামী (রাঃ) মুসনাদ আহমদ এবং তাবরানী তে উল্লিখিত সকল হাদিসসমূহ কে নির্ভরযোগ্য বলে অভিহিত করেছেন।
এবং আল্লাহ তায়ালাই সর্বজ্ঞ।
মওলানা মুহাম্মাদ ইবনে মওলানা হারুন আব্বাসুমার
হাদিসসমূহের বিশিষ্টতা বিষয়ক অনুষদ
একজন শহীদ বা একজন জান্নাতির জন্য জান্নাতে হুরীর সংখ্যা (৭০ নাকি আরও বেশি) কোন হাদিসে এবং কোন বইয়ে বলা আছে
মুফতি ইব্রাহিম দেশাই, Ask-Imam, প্রশ্ন নং ৭০০৭, অক্টোবর ২৯, ২০০২

উপসংহার

এই নিবন্ধটি হতে আমরা অন্ততপক্ষে তিনটি বিষয় সম্পর্কে স্পষ্ট ধারনা লাভ করতে পারি:
১। ইসলাম আমাদের শিক্ষা দেয় যে, জিহাদে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে যারা শহীদের মর্যাদা লাভ করবেন, তাঁরা পুরস্কার হিসেবে ৭২ জন স্ত্রী তথা কুমারী লাভ করবেন।
২। তন্মধ্যে দু’জন নারী হবেন আয়তলোচনা জান্নাতি হুরি আর সত্তরজন হবেন জাহান্নামীদের মধ্য হতে ওয়ারিসী সুত্রে প্রাপ্ত।
৩। এবং এই হাদিসগুলো বিভিন্ন মুসলিম পণ্ডিতগণের মতামত অনুসারে সহিহ বলে গন্য হয়েছে।

তথ্যসূত্র

1.↑ 1.0 1.1 Edited by Prof. John Esposito and Prof. Ibrahim Kalin – The 500 Most Influential Muslims in the World (P. 94) – The Royal Islamic Strategic Studies Centre, 2009

2.  The Refutation of him who attributes direction to Allah – Kitaabun, accessed May 6, 2011

3.  Shaykh Gibril Haddad – How Many Wives Will The Believers Have In Paradise? – SunniPath, Question ID:4828, July 3, 2005

মূল : WikiIslam
অনুবাদক : Jannatul Ferdaus Shwarna

Facebook Comments

2 thoughts on “৭২ হুরী বিষয়ক হাদিসের সত্যতা

  • January 4, 2019 at 1:19 pm
    Permalink

    লেখাটা খুব resourceful নিঃসন্দেহে ৷ পুরুষতান্ত্রিকতা কীভাবে ধর্মের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত সেটা আরো একবার বোঝা গেল। কিন্তু পর্ন মডেলের ছবিগুলো সেই বিকৃত পুরুষতান্ত্রিক রুচি , যা অনুযায়ী নারীদেহ ভোগ্যপণ্য ছাড়া কিছু নয়, তারই প্রতিফলন নয় কি?
    তাছাড়া ছবিগুলো যার, ব্যবহার করার আগে তার অনুমতি নিয়েছেন তো লেখক?
    লেখাটি যেরকম ,তাতে কোন দুর্বোধ্য psychological effect তৈরি করতে চেয়েছেন লেখক তার অডিয়েন্সের মধ্যে তা ফ্রয়েডই জানেন ! লেখাটা পড়ে মনে হল, প্রতিপাদ্য প্রমাণে এগুলোর দরকার ছিল না।

    আপনার এই লেখার প্রশংসা করেও আপনার রুচি নিয়ে প্রশ্ন না করে পারা যাচ্ছে না।

    Reply

Leave a Reply

%d bloggers like this: