‘কুরআন ১৪০০ বছর আগেই জানিয়েছে, চাঁদের নিজস্ব আলো নেই’

ভূমিকা

আধুনিক ইসলামিস্টদের অনেকেই দাবি করেছিলেন যে, ‘বিজ্ঞানের কল্যাণে বর্তমানে আমরা জানি যে চাঁদের নিজস্ব কোনো আলো নেই এবং চাঁদ সূর্যের আলোকে প্রতিফলিত করে, অথচ কুরআন ১৪০০ বছর আগেই আমাদের সেই তথ্য দিয়েছে, অতএব কুরআন কোনোভাবেই মানুষের লেখা গ্রন্থ হতে পারে না’। ইসলামিস্টরা যেসকল তথাকথিত ‘কুরআনের বৈজ্ঞানিক মিরাকল’ প্রচার করে দিনের পর দিন ঘাম ঝরিয়েছেন এবং আজও ঝরিয়ে যাচ্ছেন কেবল নিজেদের নির্বুদ্ধিতা সবার মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্যে তার মধ্যে এটি বহুল প্রচলিত।

কুরআনের আয়াত

প্রথমে যে আয়াত সমূহকে ঘিরে ইসলামিস্টরা হাস্যকর দাবিটি তোলেন সেই আয়াত সমূহ তুলে ধরছি:

25:61

تَبَارَكَ الَّذِى جَعَلَ فِى السَّمَآءِ بُرُوجًا وَجَعَلَ فِيهَا سِرٰجًا وَقَمَرًا مُّنِيرًا

Bengali – Bayaan Foundation

বরকতময় সে সত্তা যিনি আসমানে সৃষ্টি করেছেন বিশালকায় গ্রহসমূহ। আর তাতে প্রদীপ ও আলো বিকিরণকারী চাঁদ সৃষ্টি করেছেন।

10:5

هُوَ الَّذِى جَعَلَ الشَّمْسَ ضِيَآءً وَالْقَمَرَ نُورًا وَقَدَّرَهُۥ مَنَازِلَ لِتَعْلَمُوا عَدَدَ السِّنِينَ وَالْحِسَابَ ۚ مَا خَلَقَ اللَّهُ ذٰلِكَ إِلَّا بِالْحَقِّ ۚ يُفَصِّلُ الْءَايٰتِ لِقَوْمٍ يَعْلَمُونَ

Bengali – Bayaan Foundation

তিনিই সূর্যকে করেছেন দীপ্তিময় এবং চাঁদকে আলোময় আর তার জন্য নির্ধারণ করেছেন বিভিন্ন মনযিল, যাতে তোমরা জানতে পার বছরের গণনা এবং (সময়ের) হিসাব। আল্লাহ এগুলো অবশ্যই যথার্থভাবে সৃষ্টি করেছেন। জ্ঞানী সম্প্রদায়ের জন্য তিনি আয়াতসমূহ বিস্তারিতভাবে বর্ণনা করেন।

71:16

وَجَعَلَ الْقَمَرَ فِيهِنَّ نُورًا وَجَعَلَ الشَّمْسَ سِرَاجًا

Bengali – Bayaan Foundation

আর এগুলোর মধ্যে চাঁদকে সৃষ্টি করেছেন আলো আর সূর্যকে সৃষ্টি করেছেন প্রদীপরূপে’।

জবাব

কুরআন অনুযায়ী, আসলেই কি চাঁদের নিজস্ব আলো নেই ও সূর্যের আলো প্রতিফলিত করে নাকি চাঁদ কেবলই একটি আলোর উৎস? আধুনিক ইসলামিস্টরা কুরআনকে নির্ভুল প্রমাণ করার উদ্দেশ্যে কুরআনের আয়াতে ব্যবহৃত শব্দ সমূহের অর্থ বিকৃত করেন না তো? এখানে এসব প্রশ্নের উত্তর দেয়াটা খুব প্রয়োজনীয় না। এইসব প্রশ্নের উত্তর না দিলেও ইসলামিস্টদের তথাকথিত বৈজ্ঞানিক মিরাকলের দাবিটি কেন ভুল বা মিথ্যা তা প্রমাণ করা যাবে।

আমরা ধরে নিলাম, কুরআন অনুযায়ী, চাঁদের নিজস্ব কোনো আলো নেই এবং চাঁদ সূর্যের আলো প্রতিফলিত করে। কুরআন যদি আসলেই বুঝায় যে চাঁদের নিজস্ব কোনো আলো নেই এবং চাঁদের আলো প্রতিফলিত আলো, তাহলে কি ইসলামিস্টদের এই দাবিটি সত্য হয়ে যায় যে, কুরআনই সর্বপ্রথম তা মানবসভ্যতাকে জানিয়েছে? তাহলে কি প্রমাণিত হয়ে যায় যে কুরআন ঐশ্বরিক কিতাব?

না, একদমই না। বাস্তবতা আমাদের বলে, চাঁদের আলো যে সূর্যের প্রতিফলিত আলো, এই ধারণাটি ইসলামের সূচনার হাজার বছর পূর্বেও প্রচলিত ছিলো।

কিছু উদাহরণ তুলে ধরছি:

Thales (585 BC):

The moon is lighted from the sun. 29; 360. Thales et al. agree with the mathematicians that the monthly phases of the moon show that it travels along with the sun and is lighted by it, and eclipses show that it comes into the shadow of the earth, the earth coming between the two heavenly bodies and blocking the light of the moon (Doxographi on Thales, Aet. ii. 1 ; Dox. 327) (6).

Anaxagoras (500-428 BC) considered the moon be to a false-shining star (255).

The Doxographist elaborate further on this:

The moon is below the sun and nearer us. The sun is larger than the Peloponnesos. The moon does not have its own light, but light from the sun (The Doxographists on Anaxagoras, Hipp. Phil. 8 ; Dox. 561) (260-1).

Empedocles (490-430):

As sunlight striking the broad circle of the moon. 154. A borrowed light, circular in form, it revolves about the earth, as if following the track of a chariot (Empedocles, translations of the fragments I) (177).

Lucretius (100-50 BC):

How then, if the sun is so small, can it give of such a flood of light (p.189)?

The moon, too, whether it sheds a borrowed light upon the landscape in its progress or emits a native radiance from its own body. What then of the moon? It may be that it shines only when the sun’s rays fall upon it. Then day by day, as it moves away from the sun’s orb, it turns more its illuminated surface towards our view till in its rising it gazes down face to face up the setting of the sun and beams with lustre at the full. Thereafter, it is bound to hide its light bit by bit behind it as it glides around heaven towards the solar fire from the opposite point of the zodiac (192-193) (Lucretius, The Nature of the Universe).

উপসংহার

নিঃসন্দেহেই ইসলামিস্টদের বহুল প্রচলিত দাবিটি মিথ্যা। কেননা ‘চাঁদের আলো তার নিজস্ব আলো নয় বরং প্রতিফলিত আলো’ এই ধারণাটির অস্তিত্ব ইসলামের হাজার বছর পূর্বেও ছিলো।

Marufur Rahman Khan

Atheist, Feminist

7 thoughts on “‘কুরআন ১৪০০ বছর আগেই জানিয়েছে, চাঁদের নিজস্ব আলো নেই’

  • July 2, 2019 at 1:43 pm
    Permalink

    তার মানে আপনি বলতে চাইছেন যে কোরান একটি দৈব বই? বাহ্ খুব চমত্কার উদাহরণ। আপনি মুমিনদের ভালো একটা হাতিয়ার দিলেন! ধন্যবাদ আপনাকে দেয়া উচিত অবশ্যই

    Reply
    • July 2, 2019 at 2:18 pm
      Permalink

      মন্তব্য করার আগে লেখা পড়ে দেখবেন!

      Reply
  • July 3, 2019 at 8:58 am
    Permalink

    আরবদের তৎকালীন ধারণা কী ছিল সেটা আগে জানা দরকার।
    গ্রীকদের হাইপোথিসিসের খোঁজখবর আরবরা কি আদৌ রাখতো?
    এগুলো জানার পরই বলা যাবে এই আয়াতগুলো মিরাকল না।

    Reply
  • July 5, 2019 at 6:48 pm
    Permalink

    এইসব আজেবাজে কথা কোথা থেকে নিয়ে আসেন আপনারা? রেফারেন্স বিহীন কথা! আ্যারিস্টোটল, প্লেটো, থেলিসদের মতবাদ আরাবিক এবং সিরিয়াক ভাষায় অনুবাদ হয় মধ্যযুগে!

    তারা বলতে গেলে এক প্রকার উত্তরাধিকারদের মতই গ্রিক থিওলজি গুলো আয়ত্ত করে, তবে সেটা ছিল মধ্যযুগে এবং সেই সময় ছিল যখন আরবরা ইজিপ্ট (মিশর) বা লেভান্তে এর উপর রাজত্ব লাভ করে।

    আর গ্রিক থেকে আরাবিক এ অনুবাদ বা ব্যাখ্যা শুরু হয় প্রায় উমাইয়াদ খিলাফতের সময় যা মুহাম্মাদ সাঃ এর মারা যাবার শত শত বছর পর!

    Arabs took control of previously Hellenized areas such as Egypt and the Levant in the 7th century.[18] At this point they first began to encounter Greek ideas, though from the beginning, many Arabs were hostile to classical learning.[19] Because of this hostility, the religious Caliphs could not support scientific translations. Translators had to seek out wealthy business patrons rather than religious ones.[19] Until Abbasid rule in the 8th century, however, there was little work in translation. Most knowledge of Greek during Umayyad rule was gained from those scholars of Greek who remained from the Byzantine period, rather than through widespread translation and dissemination of texts. A few scholars argue that translation was more widespread than is thought during this period, but theirs remains the minority view.[19]

    সূত্রঃ https://en.m.wikipedia.org/wiki/Transmission_of_the_Greek_Classics

    Reply
  • July 5, 2019 at 7:15 pm
    Permalink

    প্রতিটা কথার রেফারেন্স সাথেই আছে! আপনি রেফারেন্স চেক করতে না জানলে বা রেফারেন্স চেক করতে অনিহা থাকলে কিছু করার নেই। “রেফারেন্স বিহীন কথা” এসব বলে লাভ নাই! বলুন আপনার জ্ঞানে ঘাটতি আছে!

    Reply
  • July 6, 2019 at 5:29 am
    Permalink

    আমার কথার মানে বুঝেছেন তো? আমি তো কোথাও বলিনি যে, থেলিস বা অন্য কেউ কোথাও বলেন নি যে চাদের নিজের আলো আ।। তবে আপনার পোস্টের মূল দাবি হল যে চাদের আলো নেই এটা গ্রিকরা জানতো। সেখান থেকে মুহাম্মাদ সাঃ কপি করেছে আর আমি সেই পরিপ্রেক্ষিতে আপনাকে রেফারেন্স দিলাম যে উনাইয়া শাসনের আগে কোন গ্রিক দার্শনিকের কথা অনুবাদ হয়নি আর আরবদের মুখে তা প্রচলিত থাকা ছিল সূদুর স্বপ্নের ব্যাপার। আমি আপনার কাছে সেই রেফারেন্সটাই চেয়েছি।

    Reply
  • July 6, 2019 at 2:44 pm
    Permalink

    আপনি কি বলেছেন তা আমি বুঝেছি, তবে আমি যা বলেছি তা আপনি ধরতে পারেন নি। আমি বলতে চাচ্ছি গ্রীক দার্শনিকরা আসলে আল্লাহর প্রেরিত নবী ও রাসূল, কারণ তারা অনেক অলৌকিক অলৌকিক তথ্য দিয়েছেন!

    Reply

Leave a Reply

%d bloggers like this: