গরু না খেলে ভালো হিন্দু হওয়া যেত না- স্বামী বিবেকানন্দ

হিন্দু ধর্মের অনেক গ্রন্থেই গরু বলির ও গোমাংস খাওয়ার কথা রয়েছে। কিন্তু বিশ্বাসী হিন্দুরা সাধারণত তা মানতে চান না। বিবেকানন্দের বাণী ও রচনাতে গোমাংস সম্বন্ধে তার বেশ কিছু উক্তি পাওয়া যায়। প্রাচীন হিন্দুরা যে গোমাংস খেত তার কথায় তা স্পষ্ট হয়ে ওঠে। সত্য জানতে হলে সকল বিশ্বাসী হিন্দুদের গোমাংস সম্বন্ধে বিবেকানন্দের বক্তব্যগুলো জানা উচিত। নিচে তার উক্তিগুলো উল্লেখ করা হল-

1)If we did not eat beef and mutton, there would be no butchers. Eating meat is only allowable for people who do very hard work, and who are not going to be Bhaktas; but if you are going to be Bhaktas, you should avoid meat.

[The Complete Works of Swami Vivekananda/Volume 4/Addresses on Bhakti Yoga/The_Preparation]

১) অনুবাদঃ আমরা যদি গোমাংস এবং মেষের মাংস না খেতাম তাহলে কোনো কসাই থাকতো না। যারা অত্যন্ত কঠোর পরিশ্রমী এবং যারা ভক্ত হবেন না একমাত্র তাদের ক্ষেত্রে মাংস খাওয়া গ্রহণযোগ্য কিন্তু আপনি  যদি ভক্তি হতে চলেন তবে আপনার মাংস পরিত্যাগ করা উচিত।

2)Every man, in every age, in every country is under peculiar circumstances. If the circumstances change, ideas also must change. Beef-eating was once moral. The climate was cold, and the cereals were not much known. Meat was the chief food available. So in that age and clime, beef was in a manner indispensable. But beef-eating is held to be immoral now.

[The Complete Works of Swami Vivekananda/Volume 6/Notes Of Class Talks And Lectures/Notes Taken Down In Madras, 1892-93] 

২) অনুবাদঃ সকল যুগের সকল দেশের সকল মানুষ অদ্ভুত পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যায়। পরিস্থিতির পরিবর্তন হলে ধারণারও পরিবর্তন  হওয়া উচিত। গোমাংস খাওয়া একসময় নৈতিক ছিল। জলবায়ু শীতল ছিল, খাদ্যশস্য খুব একটা পরিচিত ছিল না। মাংসই প্রধান সুলভ খাদ্য ছিল। সুতরাং সেই যুগে এবং আবহাওয়ায় গোমাংস  খাওয়া একরকম অপরিহার্য ছিল। কিন্তু গোমাংস খাওয়া এখন অনৈতিক।

৩) “সত্য বটে , বহু বাক্য এক আধটির দ্বারা নিহত হওয়া অন্যায্য। তাহা হইলে চিরপ্রচলিত মধুপর্কাদি প্রথা [১] ‘অশ্বমেধং গবালম্ভং সন্ন্যাসং পলপৈতৃকম’ ইত্যাদি [২] দুই একটি বাক্যের দ্বারা কেন নিহত হইল ? বেদ যদি নিত্য হয় , তবে ইহা দ্বাপরের , ইহা কলির ধর্ম ইত্যাদি বচনের অর্থ এবং সাফল্য কি?”

[১] মধুপর্ক বৈদিক প্রথা- ইহাতে গোবধের প্রয়োজন হইত।

[২] অশ্বমেধং গবালম্ভং সন্ন্যাসং পলপৈতৃকম।

দেবরেণ সুতোৎপত্তিং কলৌ পঞ্চ বিবর্জয়েৎ।।

অশ্বমেধ, গোবধ, সন্ন্যাস , শ্রাদ্ধে মাংসভোজন এবং দেবর দ্বারা পুত্রোৎপাদন – কলিকালে এই পাঁচটি ক্রিয়া বর্জন করিবে।

[ বাণী ও রচনা, ৬ ষ্ঠ খণ্ড/ ১৭ ই আগস্ট, ১৮৮৯ এ প্রমদাবাবুকে লিখিত পত্র ]

4) The Brahmins at one time ate beef and married Sudras. [A] calf was killed to please a guest. Sudras cooked for Brahmins.

অনুবাদঃ ব্রাহ্মণেরা একসময় গোমাংস খেতেন এবং শূদ্রাকে বিয়ে করতেন। অতিথির সন্তুষ্টির জন্য একটি গোবৎসকে হত্যা করা হত। শূদ্রেরা ব্রাহ্মণদের জন্য রান্না করতো।

[The Complete Works of Swami Vivekananda/Volume 9/Newspaper Reports/Part III: Indian Newspaper Reports/ A Bengali Sadhu] 

5) There was a time in this very India when, without eating beef, no Brahmin could remain a Brahmin; you read in the Vedas how, when a Sannyasin, a king, or a great man came into a house, the best bullock was killed; how in time it was found that as we were an agricultural race, killing the best bulls meant annihilation of the race. Therefore the practice was stopped, and a voice was raised against the killing of cows.

অনুবাদঃ একসময় এই ভারতে গরু না খেলে কোনো ব্রাহ্মণ ব্রাহ্মণ থাকতে পারতেন না। আপনি বেদে পড়তে পারেন, কোনো বাড়িতে সন্ন্যাসী, রাজা কিংবা গুরুত্বপূর্ণ লোক এলে সবচাইতে ভালো বৃষকে হত্যা করা হত। ধীরে ধীরে সকলে  বুঝলেন যেহেতু আমরা কৃষিজীবি জাতি , তাই সেরা সেরা বৃষ হত্যা করা মানে জাতির বিনাশ করা। তাই এই প্রথা বন্ধ হয়ে যায় এবং গোহত্যার বিরুদ্ধে আওয়াজ ওঠে।

[The Complete Works of Swami Vivekananda/Volume 3/Lectures from Colombo to Almora/Reply to the Address of Welcome at Madura] 

6) You will be astonished if I tell you that, according to the old ceremonials, he is not a good Hindu who does not eat beef. On certain occasions he must sacrifice a bull and eat it. That is disgusting now.

অনুবাদঃ আপনারা আশ্চর্যান্বিত হবেন, যদি আমি আপনাদের বলি প্রাচীন রীতি অনুযায়ী গরু না খেলে ভালো হিন্দু হওয়া যেত না। বিশেষ অনুষ্ঠানে তার অবশ্যই বৃষ বলি দিয়ে খেতে হত। এটা এখন অত্যন্ত বিরক্তিকর।

[The Complete Works of Swami Vivekananda/Volume 3/Buddhistic_India] 

বিবেকানন্দের বাণী ও রচনা ডাউনলোড করে মেলান-

বাণী ও রচনা বাংলায়- প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় , চতুর্থ, পঞ্চম, ষষ্ঠ, সপ্তম, অষ্টম, নবম, দশম

বাণী ও রচনা ইংরেজিতে 

স্ক্রিনশট

১)

২)

৩)

৪)

৫)

৬)

আরও পড়ুন, মহাভারতে গোমাংস

Facebook Comments

অজিত কেশকম্বলী II

"মানুষ ছাড়া ক্ষ্যাপারে তুই মূল হারাবি, মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি।"

One thought on “গরু না খেলে ভালো হিন্দু হওয়া যেত না- স্বামী বিবেকানন্দ

  • July 8, 2019 at 12:17 pm
    Permalink

    গরু না খেলে ভাল হিন্দু হওয়া যায় না যদি স্বামিজি বলে থাকেন,উনিতো এটাও বলেছেন যে রাজযোগ নামক যোগপদ্ধতির মাধ্যমে ঈশ্বরানোভূতি/আত্বানোভূতিও সম্ভব, তাতো বলেননি।

    Reply

Leave a Reply

%d bloggers like this: