সমকামীতা প্রসঙ্গেঃ সামাজিক ও ধর্মীয় কুসংস্কারে আবদ্ধ মানবাধিকার।

সমকামীতা প্রসঙ্গে কথা বলা বা এই বিষয়কে নিয়ে আলোচনা করাটা আমাদের সমাজে বিব্রতকর। আর একজন নাস্তিক মুক্তমনার জন্য তো তা আরও যন্ত্রণাদায়ক। এমনিতেই একজন নাস্তিককে সমাজের বহু অনাচারের বিরুদ্ধে কথা বলে মুর্খ জনগন এবং ধর্মজীবীদের তোপের মুখে পরতে হয়, তার উপরে থাকে সমকামীদের অধিকার প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে সমকামী ট্যাগের শিকার হওয়া, সাধারন স্বল্পবুদ্ধির যারা বিন্দুমাত্র পড়ালেখা না করে এই বিষয়ে প্রাচীন ধ্যান ধারনার উপরে আস্থা রাখেন তাদের ঘৃনার পাত্র হওয়া।

তবে ব্যাক্তিগত ভাবে আমি জনপ্রিয়তার আশা করি না, কে আমার সাথে একমত হল কে হল না তা থোরাই পরোয়া করি। কিন্তু আমার অর্জিত জ্ঞান, পড়ালেখা এবং একান্ত চিন্তা আমার প্রকাশ করতেই হবে, সব মানুষ যদি আমার বিরুদ্ধেও চলে যায়, তারপরেও বলতে হবে।

আমার এই লেখার উদ্দেশ্য মোটেও সমকামীতাকে উৎসাহিত করা নয়, বা আপনাকে সমকামী হয়ে যেতে বলা নয়। কিন্তু যারা সমকামী তাদের সামাজিক সুযোগ সুবিধার ব্যাপারে আপনার চিন্তার কিছুটা হলেও পরিবর্তন করা, তার সুফল এবং কুফল তুলে ধরা। বস্তুত পক্ষে মানবাধিকার বিষয়ে সকলের চিন্তার স্থবিরতাকে আঘাত করা। আপনি ব্যাক্তিগত ভাবে সমকামী যৌনতা সম্পর্কে কি মনোভাব পোষন করেন তা জানার কোন আগ্রহ আমার নাই, যারযার যৌনরুচি তাকেই বুঝতে দিন। যতক্ষণ পর্যন্ত না যৌনরুচির কারনে কোন অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে, ততক্ষণ এই বিষয়ে আমার কিছুই বলার নাই। যখনি অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে, তখনি তার কারনগুলো সম্পর্কেও আমাদের সচেতন থাকতে হবে।

সমকামীতা সম্পর্কে সাধারন ভাবে আমরা কিছু ভুল তথ্য জেনে থাকি। তথ্য গুলোর উৎপত্তি হয় সাধারনত আমাদের ধর্মীয় মুল্যবোধ থেকে, সামাজিক মনোভাব থেকে। আমরা এই ধারনাগুলো সমাজ থেকে পেয়ে আমাদের মস্তিষ্কের দরজা বন্ধ করে দেই, আধুনিক বিজ্ঞানকর্মী বা মানবাধীকার কর্মীরা যতই গলা ফাটিয়ে চেঁচাক, আমরা কানেই তুলি না।

এই বিষয়ে মুক্তমনায় অভিজিৎ দা চমৎকার কাজ করেছেন, তার লেখা সবাইকে পড়ার আহবান জানাচ্ছি। আর এই বিষয়ে আমার নিজস্ব কিছু চিন্তা তুলে ধরছি।

আশা করছি আমার কথাগুলো পাঠক খোলা মন নিয়ে চিন্তা করবেন, আর যারা এই নিয়ে লেখার কারনে আমাকে সমকামী বানিয়ে ফেলবেন, তাদের জন্য করুনা বোধ করা ছাড়া আর কিছুই দেয়ার নাই।

আমাদের সকলের মনে রাখতে হবে একটা স্বাধীন সভ্য দেশে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা প্রত্যেক রাষ্ট্রের দায়িত্ব। আমাদের দেশে অবশ্যই সমকামী বিবাহের আইন করা প্রয়োজন, সমকামীদের সামাজিক ভাবে স্বীকৃতি দেয়া প্রয়োজন। এটা যেকোন সভ্য সমাজের দায়িত্ব।

সমকামীরা সামাজিক অবদমনের কারনে বিভিন্ন প্রকার অপরাধপ্রবনতা এবং একই সাথে আত্মহত্যাপ্রবনতা এবং বিভিন্ন মনোবৈকল্যের শিকার হতে পারেন। এর ভেতরে থাকতে পারে ড্রাগসে আসক্তি, অবদমনের কারনে যৌনতা বিকৃতির দিকে মোড় নেয়া ইত্যাদি। এর পেছনে সমকামীতাকে দায়ী করা যাবে না, সামাজিক অবদমন এবং ধর্মীয় দৃষ্টিতে পাপবোধের সৃষ্টিই এর কারন।

আমাদের দেশে প্রায়শই দেখা যায় ছোট ছোট শিশুরা তাদের বয়ষ্ক আত্মীয়, এলাকার কোন বয়ষ্ক পুরুষ দ্বারা যৌন নির্যাতনের শিকার হন, যেটার জন্য সমকামীদের ঢালাওভাবে অভিযুক্ত করা হয়। আমরা সমকামীদের সামাজিক ভাবে চিনি নি, আমরা জানি না যে আমাদের পাশের বাসার ভদ্রলোক, যাকে দেখলে খুব আপনি ভাবতেই পারবেন না তিনি সমকামী, যিনি স্ত্রী সন্তান নিয়ে আপাতদৃষ্টিতে সুখে জীবন কাটাচ্ছেন, তিনি হয়তো জন্মগত ভাবেই সমকামী। সামাজিক শৃংখলা আর অবদমনের কারনে তার সেক্সুয়াল ওরিয়েন্টেশন বিকৃতির দিকে মোড় নিতে পারে, সে ধর্ষকামী/ শিশুকামী তে পরিনত হতে পারে। আধুনিক গবেষনা মতে ধর্ষকামীতা বা শিশুকামীতার সাথে সমকামীতার কোন সম্পর্ক নাই, এবং সমকামীতা কোন মতেই বিকৃতি নয়। তবে সামাজিক ভাবে যৌন অবদমন অবশ্য ধর্ষকামীতা বা শিশুকামীতার মত বিকৃতির জন্ম দিতে পারে বলে মনে করি( এই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনার অবকাশ আছে, সামাজিকভাবে যৌন অবদমন যে ধর্ষকামীতা/শিশুকামীতার মত বিকৃতির জন্ম দিতে পারে এটা একান্তই ব্যাক্তিগত ধারনা, বৈজ্ঞানিক গবেষনাপ্রাপ্ত ফলাফল নয়)।

তিনি যদি সুস্থ সমকামী জীবন যাপন করতেন, তার যদি একজন পুরুষ সঙ্গী থাকতো, তার এই ধরনের ধর্ষক মনোভাব থাকতো না।সুস্থযৌন আচরন ধর্ষকামীতা/শিশুকামীতা ইত্যাদি বিভিন্ন ধরনের বিকৃতি থেকে তাদের রক্ষা করতে পারে যাতে করে আমাদের সমাজের হাজারো শিশু এই ধরনের যৌন নির্যাতন থেকে রক্ষা পায়।

সমকামী পুরুষটিকেও কিন্তু দোষ দেয়া যাচ্ছে না। আমাদের সমাজ তার স্বাভাবিক যৌনতার প্রধান বাধা। সে হয়তো শুরু থেকেই সমকামী, কিন্তু সমাজের চাপে প্রকাশ করতে না পারায় লুকিয়ে লুকিয়েই তার যৌনাকাংখা চরিতার্থ করতে হয়েছে। এই কারনে তার বিভিন্ন ধরনের অপরাধের সাথে জড়িয়ে পরতে হয়েছে, নিজের অবদমিত যৌনতা উপভোগের জন্য।

কাল এমন হতে পারে যে আপনার ভাই বা বোন সমকামী হয়ে জন্মালো(সমকামীতার বীজ তার ভেতরে জন্ম থেকেই থাকতে পারে)। তার সমস্যাটাকে আপনি যদি গভীরভাবে বিশ্লেষন বা তদন্ত না করে শুরুতেই আপনার প্রাচীন ধ্যান ধারনা দ্বারা তাকে মারধোর করা শুরু করেন, তাকে চাপ দিতে থাকেন, বেচারা বা বেচারী কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে? সে আপনার কাছ থেকে একটু মানবিক আশ্রয় চাইতে পারে, ব্যাপারটা আপনি বুঝবেন সেটা আশা করতে পারে। তার কি দোষ বলতে পারেন? সে বেচারীর যৌন আকাংখা প্রকৃতি ভিন্নভাবে তৈরি করে দিয়েছে। হয়ত সে সারাজীবন মনের একান্ত ইচ্ছাকে গলাটিপে মেরে আপনাদের পছন্দমত বিপরীত লিঙ্গে বিয়ে করে জীবন পার করলো, কিন্তু তারও তো প্রেমের অনুভুতি আছে, তারও তো ভালবাসার মানুষ বেছে নেয়ার অধিকার আছে, কতদিন সে যাকে ভালবাসে না বা যার জন্য তার শরীর সে বিন্দুমাত্র আন্দোলিত, উত্তেজিত হয় না, তার সাথে কষ্টকর যৌনতায় জীবন পার করবে?

এছাড়াও আর একটা গুরুত্বপুর্ণ ব্যাপার হচ্ছে সমকামীদের সেক্সুয়াল ওরিয়েন্টেশন তারা বুঝে ওঠার পরে পাপবোধ বা অপরাধ বোধ, নিজের প্রতি ঘৃণার কারনে আত্মহত্যা প্রবণতা। আমরা পেপার খুললেই দেখি আজ এখানে কোন ছেলে বা মেয়ে আত্মহত্যা করেছে। সেগুলো নিছক প্রেম ঘটিত ব্যাপার স্যাপার নাও হতে পারে। অনেক সময়ই নিজেদের সমকামী হিসেবে আবিষ্কারের পরে ছেলে মেয়েরা আত্মহত্যা করে ফেলে।

যদি তারা কোনমতে সমাজে টিকেও যায়, তখন তাদের ভেতরে সৃষ্টি হতে পারে অপরাধপ্রবনতা। সমাজের প্রতি ঘৃণা থেকে তারা বিভিন্ন ধরনের অপরাধের সাথে জড়িত হয়ে পরতে পারে।

আমরা কি পারি না একটু মানবিকভাবে ব্যাপারটা একটু গভীরভাবে বিশ্লেষন করতে?

আজকে পুরো পৃথিবীর মানবতাবাদীরা সমকামিদের অধিকার রক্ষায় আন্দোলন করে যাচ্ছে। আমরা বাঙ্গালীরা সবই বুঝি, তবে অনেক দেরি করে। আমাদের দেশেও সমকামীদের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবে, কিন্তু ততদিনে কত সমকামি আমাদের সমাজের হাতে ধুঁকে ধুঁকে মরবে কে তার খোঁজ রাখবে? তাদের কথা না হয় বাদই দিলাম, কিন্তু লুকিয়া থাকা সমকামীদের হাতে আমাদের কত শিশু যে ধর্ষিত হবে, মানসিকভাবে বিপর্যস্থ হবে, তার খবর কি আমরা রাখি?

আমরা যদি একজন সমকামীকে সামাজিক ভাবে চিহ্নিত করি, তার জন্য পছন্দ অনুসারে বিয়ের ব্যাবস্থা করি, তাতে সমাজের কি ক্ষতি হয়ে যাবে? কিন্তু বিপরীতে উপকার হবে যে আমরা চিনতে পারবো একজন সমকামীকে, একজন সমকামী আমার শিশু সন্তানের দিকে হাত বাড়াতে চাইবে না, চাইলেও আমরা সমকামী পুরুষ থেকে আমার শিশুকে দুরে রাখতে পারবো।

সমকামীতা সম্পর্কে আমাদের সমাজ হাজারো কুসংস্কারে আবদ্ধ। এমনকি যার কিছু বইপত্র পড়ে রাতারাতি প্রগতিশীল বনে গেছেন, তারাও সমকামীদের সম্পর্কে ঘৃণাত্মক মনোভাব পোষন করেন।

সমকামীতা পাশ্চাত্য সভ্যতার আবিষ্কার?

একেবারেই ভুল কথা। মধ্যপ্রাচ্যে সমকামীতার ইতিহাস বেশ পুরনো, প্রাচীন মিশরেও সমকামীতার চিহ্ন পাওয়া যায়। ভারতে সমকামীতার প্রচুর উদাহরন রয়েছে। বাৎসায়নের কামাসুত্রে সমকামীতার প্রচুর উদাহরন রয়েছে। তাই দেখা যাচ্ছে সমকামীতা পাশ্চাত্য সভ্যতার আবিষ্কার নয়, বরঞ্চ বলা যায় ভারত বা মিশর বা মধ্যপ্রাচ্য থেকেই সমকামীতা পাশ্চাত্যে গিয়ে থাকতে পারে। তাই যারা বলে সমকামীতা আমাদের সংস্কৃতি ঐতিহ্যের লঙ্ঘন, তাদের ভারতবর্ষের ইতিহাস পড়ে দেখার অনুরোধ রইলো।

সমকামীতা প্রকৃতি বিরুদ্ধ?

সমকামীতা প্রকৃতি বিরুদ্ধ কোন ঘটনা নয়। প্রাণীকূলে প্রচুর সমকামীতার উদাহরন পাওয়া যায়, প্রানীরা পাশ্চাত্য সভ্যতায় দীক্ষা নিয়ে সমকামীতায় লিপ্ত হচ্ছে বা প্রকৃতি বিরুদ্ধ কাজ করছে এমনটা মনে করাটা মুর্খতা ছাড়া আর কিছুই না। একজন মানুষ সমকামী হতেই পারে, এটা দোষের কোন ব্যাপার না। প্রকৃতিতে সমকামীতার উদাহরন থাকলে মানুষের ভেতরেও থাকবে, এতে অস্বাভাবিকত্বের কিছু নাই।

সমকামীতা মানসিক বিকৃতি?

সমকামীতা মানসিক বিকৃতি হতেই পারে না। একজন স্ট্রেইট কখনই সমকামী হতে পারবে না। মানুষের যৌন রুচিকে সাধারনত কয়েক ভাগে ভাগ করা যায়, দেখা যায় প্রচুর মানুষের মধ্যেই সমকামীতার কিছু সাধারন প্রবনতা থাকে। যাদের ভেতরে এই সাধারন প্রবনতাগুলো থাকে, তারা বিরুপ পরিবেশে নারী সঙ্গের বাইরে থাকলে(মাদ্রাসা, জেলখানা ইত্যাদি)সমকামী হয়ে উঠতে পারে। তবে একজন স্ট্রেইট মানুষ সমকামী হয়ে ওঠার সম্ভাবনা একেবারেই নাই।

সমকামীদের অধিকার বিষয়ে কথা বলাটা কি সমকামী হয়ে যেতে বলা?

একটা সাধারন প্রবনতা হচ্ছে সমকামীতা নিয়ে কিছু সাধারন কথা বললেই ধরে নেয়া হয় যাকে বলা হচ্ছে তাকে সমকামী হবার জন্য উৎসাহিত করা হচ্ছে। মোটেও ব্যাপারটা তা নয়। আপনি স্ট্রেইট, আপনার যৌনরুচি নিয়ে আপনি সুস্থ জীবন যাপন করুন। কিন্তু একজন সমকামীকে স্ট্রেইট হয়ে যাবার কথা আপনি বলতে পারেন না। যৌনরুচি যার যার ব্যাক্তিগত ব্যাপার। যে যেরকম ভাবে নিজের যৌনতা উপভোগ করতে চাচ্ছে তাকে সেভাবেই উপভোগ করতে দিন। কিন্তু যৌনরুচির পার্থক্যের কারনে আমরা কেন একজন আর একজনের প্রতি বিদ্বেষ পোষন করবো?

সমকামীদের অধিকার দিলে গনহারে সবাই সমকামী হয়ে যাবে?

এই ধরনের চিন্তা যাদের করে তাদের একমাত্র জায়গা হওয়া উচিৎ মানসিক হাসপাতাল।

সমকামী হয়ে গেলে মানব সভ্যতা ধ্বংস হয়ে যাবে?

মানব সমাজে এবং প্রানীকূলে সব সময়ই একটা অংশ সমকামী হবে, এটা বৈজ্ঞানিক গবেষনাতেই প্রমানিত। কিন্তু সব মানুষের সমকামী হওয়া সম্ভব নয়, তাই মানব সভ্যতা ধ্বংস হয়ে যাবার সম্ভাবনাও নাই। তারা সমাজের ছোত একটা অংশ, তাদের দেখা দেখি স্ট্রেইটদের সমকামী হওয়া একেবারেই সম্ভব না, যদি না ভেতরে সমকামীতার বীজ থেকে থাকে। আর প্রকৃতি সব সময়ই ভারসাম্য রক্ষা করে চলে, মানবকুলের সমকামী হয়ে যাবার কোন সম্ভাবনাই তাই নাই।

সমকামীতা এক ধরনের অসুস্থতা? চিকিৎসা প্রয়োজন?

পাশ্চাত্যে সমকামীতা নিয়ে প্রচুর গবেষণা হয়েছে, সেখানে সমকামীতাকে অসুস্থতা বলে চিহ্নিত করার কোন কারন পাওয়া যায় নাই। সমকামীতার অভ্যাস ত্যাগের জন্য বেশ কিছু থেরাপী দেয়া হয়, তবে তা শুধুমাত্র তাদের জন্যই প্রযোজ্য যারা যারা বিরুপ পরিবেশে সমকামীতে পরিনত হয়েছেন। যারা জন্মগত ভাবেই সমকামী, তাদের জন্য কোন চিকিৎসা প্রযোজ্য নয়। কারন এটা কোন রোগ নয়।

মানুষ তো ইনসেস্টও করে, তাই বলে কি এটা স্বাভাবিক?

ইনসেস্ট আর সমকামীতা ভিন্ন বিষয়। এক করে দেখার কোন উপায় নাই। যিনি ইনসেস্ট সম্পর্ক স্থাপন করেন, তার এই সম্পর্কের বাইরে যাওয়া সম্ভব। বেছে নেয়ার সুযোগ থাকে প্রচুর। অন্যদিকে একজন সমকামী বিপরীত লিঙ্গের প্রতি আকৃস্টই হবে না, প্রেম-ভালবাসা-আবেগ বোধ করবে না। আর প্রেমহীন যৌনতা নোংরামী ছাড়া আর কিছুই না। একজন ধর্ষক ধর্ষন না করেও সুস্থ যৌনতার মাধ্যমে নিজের যৌন আকাঙ্ক্ষা পুরন করতে পারে। একজন ইনসেস্টকারী ইনসেস্ট না করেও সুস্থ যৌনজ়ীবন যাপন করতে পারে। যেটা সমকামীদের বেলায় প্রযোজ্য নয়।

সমকামিদের সামাজিকভাবে বয়কট করা উচিৎ?

তারা রক্তমাংশের মানুষ। সমকামীতা সমকামিরা নিজে নির্ধারন করে না। প্রকৃতি তাদের ভেতরে সমকামিতার বীজ বপন করে। একজন সমকামি পুরুষের নারীর প্রতি প্রাকৃতিকভাবে আকর্ষন নাই, যৌন আকাংখা নাই। এই দোষে নিশ্চয়ই একজন মানুষকে এক ঘরে করে রাখা বা বয়কট করা কোন মতেই মানবিক আচরন হতে পারে না।

কাল আপনার শিশু সন্তান বাম হাতি হয়ে জন্মাতে পারে, সমকামী হয়ে জন্মাতে পারে, হিজরা হয়ে জন্মাতে পারে। তাকে মারধোর করে বা চাপ প্রয়োগ করে আপনি ডান হাতি বানাতে চাইবেন, স্ট্রেইট বানাতে চাইবেন, হিজরা হলে ছুড়ে ফেলে দিতে চাইবেন, আমরা কতকাল আর এই সমস্ত ভ্রান্ত ধারনা নিয়ে বাস করবো? আমরা আমাদের ধর্মীয় এবং সামাজিক নোংরামীর বলি আর কত দেবো?

তাই একজন সমকামীকে সম্মান করুন, তাকে তার যৌনতা উপভোগ করতে দিন, তাকে আর একজন সমকামীকে বেছে নেবার সুযোগ সৃষ্টি করে দিন। মনে রাখতে হবে যে আজকে আপনি তাদের সামাজিক ভাবে চাপ দিয়ে হয়তো আপাত ভাবে স্বাভাবিক করে তুললেন, কিন্তু তার সমকামী মনোভাব তাতে পাল্টাবে না, সে কাল আপনার শিশু সন্তানের দিকে হাত বাড়াতে পারে। আপনি যেই চাপ তাকে দেবেন, সেই চাপ আপনাকেও সহ্য করতে হবে। এবং আপনার কাছে ফিরে আসলে সেটা আরও ভয়াবহ হতে পারে।

আপনার সন্তান সমকামী হলে মারধোর করবেন না, ঘর থেকে বের করে দেবেন না। তাকে বোঝার চেষ্টা করুন। কুপ্রথাগুলোকে এখন ভেঙ্গে ফেলবার সময় এসেছে, আমাদের এখন এগিয়ে যেতে হবে। ঐতিহ্য-সভ্যতা-সংস্কৃতির দোহাই দিয়ে আর কতকাল আমরা নিজেদের ক্ষতি করে যাবো।

Facebook Comments

3 thoughts on “সমকামীতা প্রসঙ্গেঃ সামাজিক ও ধর্মীয় কুসংস্কারে আবদ্ধ মানবাধিকার।

  • January 18, 2017 at 12:39 pm
    Permalink

    সমকামিতা কীভাবে প্রাকৃতিক? ছাগল ছাড়া কেউ এ কথা বলবে না। ভ্যাজিনাল সেক্সে কোনো শারীরীক ক্ষতি হয় না। আর অ্যানাল সেক্সে অ্যানাসের মাসলের টোন চলে যায় পাইলস, ফিস্টুলা ব্যাপক আকারে ঘটে।সর্বোপরি অ্যানাসের নরমাল অবস্হার পরিবর্তন ঘটে। এটাকে ন্যাচারাল একমাত্র মূর্খরাই বলবে।

    Reply
    • January 18, 2017 at 3:32 pm
      Permalink

      ছাগল ছাড়া বলবে না নাকি ছাগলেই বলবে, সেটা মন্তব্যেই বোধগম্য। তবে বাক স্বাধীনতার সমর্থক বলে এরকম হাস্যকর নির্বোধ মন্তব্যও প্রকাশ করি। যাইহোক।
      কিসে শারীরিক ক্ষতি হবার সম্ভাবনা আছে সেটা যদি অপ্রাকৃতিক বা কৃত্রিম হয়ে থাকে, তবে পৃথিবীর সমস্ত অনুজীবই অপ্রাকৃতিক। ভাইরাস ব্যাকটেরিয়া থেকে শুরু করে মশাও অপ্রাকৃতিক। লাভ কিংবা ক্ষতির সাথে প্রাকৃতিক কিংবা অপ্রাকৃতিকের কোন সম্পর্ক নেই। এইটুকু সম্ভবত আপনার পক্ষে বোঝা কঠিন।
      বনে জঙ্গলে ঘুরলে আপনাকে বাঘে কামড়াতে পারে। সেটা আপনার লাভ ক্ষতি যাই হোক, সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক ব্যাপারই সেটা। কারণ বাঘ ক্ষুধার্ত হলে মাংস খাইতে চাইবে। সেটাতে আপনার অনেক ক্ষতি হয়ে গেলেও, খুবই স্বাভাবিক এবং প্রাকৃতিক ঘটনা সেটা।
      এরকম নির্বোধ মন্তব্যের উত্তর দেয়াটাও হাস্যকর, তারপরেও বলছি। অনেক প্রাণীর মধ্যেও হস্তমৈথুন দেখা যায়। হস্তমৈথুন লাভজনক না ক্ষতির কারণ সেটা ভিন্ন বিষয়, প্রাকৃতিক বা স্বাভাবিক কিনা সেটা এখানে আলোচ্য। তেমনি, সমকামিতাও দেখা যায়। আপনার সেগুলো জানা না থাকলে একটু পড়ালেখা করতে পারেন। এখন তো অনেক কিছুই বিভিন্ন ওয়েবসাইটে পাওয়া যায়।

      অথবা কোরান পড়তে পারেন। সেখানে তো আবার সব কিছু ল্যাখা আছে।

      Reply
  • November 14, 2017 at 12:33 pm
    Permalink

    Onek valo likhen
    all the best and congratulations
    ami apnar lekha pore onek kichhu jante perechhi thanks

    Reply

Leave a Reply

%d bloggers like this: