পৃথিবীর এতো বড় বড় বিজ্ঞানী, ডাক্তার,ইঞ্জিনিয়ারগণ ঈশ্বরে বিশ্বাসী হয় কেন?

উত্তরঃ
১।পৃথিবীর সকল বিজ্ঞানী, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার যদি ঈশ্বরে বিশ্বাসী হয় তবুও ঈশ্বরের অস্তিত্ব প্রমাণিত হয়ে যায় না। লজিক্যাল ফ্যালাসীতে “আ্যপীল টু অথরিটি ” বলে একটা কথা আছে অর্থাৎ বিজ্ঞানী, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ারগণ তাদের নিজস্ব ক্ষেত্রে সফল হলেও ধর্মতত্ত্ব বা ঈশ্বর সম্পর্কে তাদের ধারনা সঠিক নাও হতে পারে।
২।এই বড় বড় বিজ্ঞানী, ডাক্তার,ইঞ্জিনিয়ারগণ সত্যিই বড় বড় বিজ্ঞানী, ডাক্তার,ইঞ্জিনিয়ার কিনা সেটি সম্পর্কে নিশ্চিত হতে হবে। নিজস্ব ক্ষেত্রে তাদের অবদান যাচাই করতে হবে।

৩। বিজ্ঞান আসলে ঈশ্বর নিয়ে মাথা ঘামায় না। বিজ্ঞান ব্যস্ত মানুষকে সাচ্ছ্যন্দ আর মহাবিশ্বকে নিয়ে অনুসন্ধান করতে। যদিও একসময় ধর্মীয় আগ্রাসন সবচেয়ে বেশী হয়েছে বিজ্ঞানীদের উপরেই।

৪।ডাক্তার আর ইঞ্জিনিয়ারদের ঈশ্বরে বিশ্বাস শুধুমাত্র বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে চিন্তা করলে হবে না।বিশ্বের বহু দেশের বহু ডাক্তার-ইঞ্জিনিয়ার আছে যারা ঈশ্বরে বিশ্বাস করে না। বাংলাদেশ সহ বিশ্বের বেশীরভাগ ডাক্তারদের সিলেবাসে বিবর্তবাদ নিয়ে খুব বেশী কিছু নেই এছাড়া “চাইল্ড ডক্ট্রিনেশন” এতো বেশী পরিমাণে ঘটে যে শরীরবৃত্তীয় বিজ্ঞান নিয়ে পড়ালেখা করেও একজন ডাক্তার বিবর্তবাদ বুঝে না বা বুঝতে চায়না এবং ঈশ্বরে বিশ্বাস রাখে।ইঞ্জিনিয়ারদের ক্ষেত্রেও “চাইল্ড ডক্ট্রিনেশন” এর গভীর ছাপ থেকে যায় যার কারনে পরবর্তী জীবনে তাদের জন্য ধর্ম বা ঈশ্বরে বিশ্বাস থেকে বের হওয়া সম্ভবপর হয় না।

Facebook Comments