রক্ত স্নাত পৃষ্ঠাঃ বালির ভিতের উপর কি দাঁড়িয়ে আছে হিন্দু ধর্ম?

এখনো অবধি যা কথা হয়েছে তাতে মাংস ভক্ষণের পক্ষে-বিপক্ষে অনেককিছু বলা হয়েছে এবং বলা হয়ে থাকে। এই দৃষ্টি থেকে যদি প্রাচীন ভারতীয় সাহিত্যের অধ্যয়ণ করা হয়, তাহলে অনেক আশ্চর্যজনক এবং বিভৎস তথ্য জানা যায়, যেমন গোহত্যা, গোমাংস ভোজন, চর্বি দিয়ে হবন করা, আলাদা আলাদা মাংসে দেবতা এবং পিতৃদের তৃপ্তির সময়কাল নির্ধারণ করা, ঋষিমুনিদের কুকুর প্রভৃতির মাংস ভক্ষণ ইত্যাদি।

Read more

হিন্দু ধর্ম ও গোমাংস-রহস্যঃ আলবিরুনি, বিবিধ মত

বিখ্যাত আলবিরুণির বিবরণের পাওয়া যায় প্রাচীন হিন্দুদের গোমাংস খাওয়ার কথা , এমনকি যজ্ঞে গরু বলি দেওয়ার কথা। আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র রায়, বিবেকন্দ, গান্ধী, রাজশেখর বসু , নৃৃসিংহ প্রসাদ ভাদুড়ী সহ অনেকেই একই মত প্রকাশ করেছেন।

Read more

হিন্দু ধর্ম ও গোমাংস-রহস্যঃ পাণিনি, চরক, সুশ্রুত, অর্থশাস্ত্র, ত্রিপিটক

প্রাচীন ভারতের চিকিৎসা গ্রন্থ চরক সংহিতা, সুশ্রুত সংহিতায় দেখা যায়- গোমাংস পথ্য হিসাবে ব্যবহৃত হত। এছাড়া প্রাচীনকালে অতিথির সৎকারের জন্য গোহত্যা করা হত। তাই অতিথির নাম হয়েছিল গোঘ্ন। সংস্কৃত ব্যাকরণবিদ পাণিনি তার অষ্টাধ্যায়ী গ্রন্থে একটি সূত্র উল্লেখ করেছেন – দাশগোঘ্নৌ সম্প্রদানে।

Read more

হিন্দু ধর্ম ও গোমাংস-রহস্যঃ সংস্কৃত সাহিত্য

সংস্কৃত সাহিত্য থেকে জানা যাচ্ছে আশ্চর্যজনক সব কথা। বাল্মীকি তার আশ্রমে ঋষি বশিষ্ঠকে আপ্যায়ন করলেন গোমাংস দিয়ে। রামের পিতা দশরথের মেনুতে থাকতো গোমাংস , তা দিয়ে চলতো অতিথি আপ্যায়ন।

Read more

হিন্দু ধর্ম ও গোমাংস-রহস্যঃ রামায়ণ, মহাভারত, পুরাণ

বর্তমানে যে রামভক্তরা গরুর জন্য উৎপাত করে চলেছে তাদের এখন কি হবে? রামায়ণ হতে জানা যাচ্ছে- রাম যখন ভরদ্বাজ মুনির আশ্রমে গিয়ে উপস্থিত হয়েছিলেন, ভরদ্বাজ রামকে তখন গোমাংস দ্বারা আপ্যায়ণ করেছিলেন।

Read more

হিন্দু ধর্ম ও গোমাংস- রহস্যঃ ধর্মশাস্ত্র

বেদ,ব্রাহ্মণ, উপনিষদ, কল্পসূত্রের মত ধর্মশাস্ত্রগুলিতেও গোমাংস খাওয়া অনুমতি রয়েছে। প্রাচীন সময়ে গরু কোনো গোমাতা ছিল না। গরু নিয়ে রাজনীতিই গরুকে গোমাতা করে তুলেছে।

Read more

হিন্দু ধর্ম ও গোমাংস-রহস্যঃ বেদাঙ্গ

ইতোপূর্বেই আমরা দেখেছি বেদের সংহিতা, ব্রাহ্মণ ও উপনিষদ ভাগে গরু বলির ও গোমাংস খাওয়ার কথা বলা আছে। এখন বেদাঙ্গে খুঁজে দেখবার পালা। বেদাঙ্গের অন্তর্গত গৃহ্যসূত্রগুলির অসংখ্যস্থলে এবং ধর্মসূত্রগুলিতেও গোহত্যা ও গোমাংস খাওয়ার কথা পাওয়া যায়।

Read more

হিন্দু ধর্ম ও গোমাংসরহস্যঃ বেদ

‘গোমাংস’ শব্দটি শুনলেই আজকাল অধিকাংশ হিন্দুরা আঁতকে ওঠেন। গোমাংস তাদের কাছে নিষিদ্ধ এক বস্তু। তাই গোমাংস খাওয়ার অপরাধে ভারতে হয়ে চলেছে হত্যা, নির্যাতন। গরু নিয়ে ভারতের রাজনীতি এখন সরগরম। গো রক্ষার জন্যে গঠিত হয়েছে নানান দল। ভাগ্যচক্রে পশু গরু এখন হয়ে উঠেছেন গোমাতা!

কিন্তু ইতিহাস বলে হিন্দুরা আগে গোমাংস খেত। তাহলে কেন তারা গোমাংস খাওয়া বন্ধ করলো? কিভাবে হিন্দুদের গোমাংসের জোগান দেওয়া আদিম গরু আজকের গোমাতা হয়ে উঠলো?

Read more

বেদে অজাচার

হিন্দুদের আদিমতম গ্রন্থ হল ঋগবেদ। এই ঋগেবেদের অনেক স্থানেই অজাচারী দেবতাদের উল্লেখ পাওয়া যায়।

ঋগ্বেদের দশম মণ্ডলের দশম সুক্তে যম ও যমী নামক দুই যমজ ভাইবোনের মধ্যে অজাচারমূলক কথোপকথন দেখা যায়। এখানে ভগিনী যমী বারংবার যমকে যৌনমিলনের জন্য আহ্বান করতে থাকেন, যদিও যমের দৃষ্টিতে অজাচার গর্হিত ছিল।

Read more

অত্রি সংহিতা ও জাতিভেদ

ধর্মশাস্ত্রগুলির মধ্যে অত্রি সংহিতা অন্যতম। ঋষি অত্রি এর রচয়িতা। এতে তিনি ‘চতুর্বর্ণের সনাতন ধর্ম’ ব্যক্ত করেছেন। তার শাস্ত্রে দেখা যায় স্ত্রী ও শূদ্র কুকুর ও কাকের সমার্থক, শূদ্রকে হত্যা করলে গাধা হত্যার প্রায়শ্চিত্ত, শ্বপাক জাতির ছায়া মারালেও প্রায়শ্চিত্ত করতে হয়।

Read more