ঈশ্বরের ধর্মবিশ্বাস

ঈশ্বর সব কিছু সৃষ্টি করেছেন বলে শোনা যায়, কিন্তু তাকে নাকি কেউ সৃষ্টি করেন নি অর্থাৎ তিনি নাস্তিক। এই ঈশ্বর অলৌকিক সত্ত্বা, তিনি আমাদের কাছে গুরুত্বহীন। ওনার চেয়ে আমাদের কাছে ঢের গুরুত্বপূর্ণ পৃথিবীর ঈশ্বর, মানে ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, যিনি সমাজ সংস্কারক হিসাবে ভারতবাসীর অন্তরে অমর হয়ে আছেন । দেশের অশিক্ষা,কুসংস্কারের তিমিরে আলোকশিখা হয়ে এসেছিলেন তিনি। বিদ্যাসাগরের ধর্মবিশ্বাস ঠিক কি ছিল? জানা যায় তিনিও নাকি তথাকথিত সর্বশক্তিমানের মতই নাস্তিক ছিলেন!

Read more

সেযুগে মায়েরা বড়ো

ঐতিহাসিকদের মতে, ৫/৬ হাজার বছর আগেও মাতৃতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থা চালু ছিল।
একসময় মানুষ শিকারী ও সংগ্রাহক জীবন যাপন করতো। নারী পুরুষের বনের পশু শিকার ও ফল মূল সংগ্রহ করেই জীবন চলতো। কাজের ক্ষেত্রে সমতা ছিল, তাই সমাজেও সমতা থাকার কথা! কিন্তু মেয়েদের আর একটা বড় দায়িত্ব পালন করতে হত, সন্তান পালন করতে হত। অন্যান্য পশুদের বাচ্চা জন্মের সাথেই প্রায় চলতে ফিরতে শিখে যায়, কিন্তু মানুষের বাচ্চা জন্মের পরও খুব অসহায় থাকে, তাই তার মায়ের সান্নিধ্যের দরকার হয়। মা যেহেতু এই বাড়তি দায়িত্বটি পালন করতেন তাই আদিম শিকারী সমাজেও ছিল মায়েরই কর্তৃত্ব।

Read more

কালিকাপুরাণে পশুবলি,গোরুবলি ও নরবলি

বর্তমান যুগে নরবলির নাম শুনলেই অধিকাংশ লোকেরা আঁতকে ওঠেন। নরবলির প্রথাটি পৃথিবীর অনেক আদিম সভ্যতাতেই প্রচলিত ছিল। হিন্দু ধর্মের নানা গ্রন্থেও নরবলির বিধান রয়েছে, তবে আজকের আলোচনা কেবল কালিকা পুরাণে বর্ণিত নরবলি নিয়ে।

Read more

রামচন্দ্রের বালী হত্যা-রাম ধর্মের অনুসারী নাকি অধর্মের?

কোনো গল্পের চরিত্রগুলি অধিকাংশ ক্ষেত্রেই শতভাগ পরিচ্ছন্ন হয় না, সেরকম হলে হয়তো গল্পই এগোতো না। তাই তো কোনো চরিত্রে প্রকাশ

Read more

ভগবান ব্রহ্মার অজাচার

হিন্দু ধর্মে ব্রহ্মা একটি বিখ্যাত নাম। তিনি সৃষ্টিকর্তা, সৃজন করেন। তিক্ত হলেও সত্য, বিভিন্ন ধর্মগ্রন্থ থেকে জানা যায় ব্রহ্মা তার নিজ কন্যার সাথে অজাচারে লিপ্ত হয়েছিলেন।

Read more

বেদবিরোধী বুদ্ধকে কেন বিষ্ণুর অবতার বানানো হল?

গৌতম বুদ্ধ যিনি বৌদ্ধ ধর্মের প্রবর্তক, হিন্দুরা তাকে বিষ্ণুর অবতার হিসেবেও জানেন। [১] বিভিন্ন পুরাণে বুদ্ধকে বিষ্ণুর নবম অবতার বলা হয়েছে। কিন্তু হিন্দুরা কি আসলেই জানেন বুদ্ধ অবতার সম্বন্ধে তাদের ধর্মগ্রন্থে কি বলা আছে? হিন্দুদের ধর্মগ্রন্থে বলা হয়েছে অসুরদের বৈদিক ধর্ম হতে ভ্রষ্ট করতেই বিষ্ণু বুদ্ধ অবতার নিয়ে বৌদ্ধ ধর্মের প্রবর্তন করেন। বৌদ্ধ ধর্মকে আসুরিক ধর্ম হিসাবে দেখানো হয়েছে। হিন্দু শাস্ত্র রচয়িতারা কেন এই কাজটি করেছিল তা জানার জন্য আমাদের খুঁজে দেখতে হবে অতীতে হিন্দুদের সাথে বৌদ্ধদের সম্পর্ক কেমন ছিল।এখন বিভিন্ন ধর্মীয় সম্প্রদায়ের মধ্যে যেমন বিদ্বেষ, সহিংসতা দেখা যায়, তেমনি অতীতেও হিন্দু ও বৌদ্ধদের মধ্যেও হিংসা-দ্বেষ ছিল।

Read more

কল্কি বৌদ্ধদের হত্যা করার জন্য আসবেন!

সাধারণ হিন্দুরা মনে করেন, কলি যুগে কল্কি পৃথিবীতে অবতীর্ণ হবেন সকল অন্যায়, অনাচার দূর করার জন্য। কিন্তু তারা কি জানেন, কল্কি পুরাণ অনুসারে, কল্কির পৃথিবীতে অবতরণের একটি মুখ্য উদ্দেশ্য- বৌদ্ধদের ধ্বংস করা?

Read more

হিন্দু ধর্মে ধর্ষণ

দেবতাদের আমরা সৎ ও ন্যায়পরায়ণ ভাবতেই ভালোবাসি। ভক্ত বিশ্বাস করে, ভগবান কেবলই দুষ্টের দমন ও শিষ্টের পালন করে থাকেন। কিন্তু সেই দেবতাই যদি হয়ে ওঠে শয়তান, লম্পট ও ধর্ষক? তবে কি মানুষ তার বিবেকের কাঠগোড়ায় দেবতাকেও দাঁড় করাবে? নাকি ক্ষমতাবলে ছাড় পেয়ে যাবে ভ্রষ্ট দেবতা? বর্তমান সময়ে নারীদের উপর বেড়ে চলা সহিংসতা,ধর্ষণ আমাদের যখন বিব্রত করে চলেছে তখন ধর্মগ্রন্থগুলোতে দৃষ্টিপাত করলে দেখা যাবে সত্যযুগ থেকে কলিযুগ অবধি কিছুই বদলায়নি। কলির অধঃপতিত পুরুষের মত সত্যের পরমপূজ্য ঋষি,দেবতারাও ধর্ষণের ন্যায় অপকর্মে জড়িত।

Read more

সতীর খোঁজে-হিন্দু শাস্ত্রে সতীদাহ-২য় পর্ব

ভাগীরথির দুই তীর আলোকিত করিয়া জ্বলন্ত চিতানলে নারীগণ ভস্মীভূত হইত, তাহাদের করুণ আর্তনাদে বাংলার আকাশ বাতাস কাঁদিয়া উঠিত, বাঙ্গালীর প্রাণে তাহা সাড়া জাগাইত না।

Read more

সতীর খোঁজে-হিন্দু শাস্ত্রে সতীদাহ-১ম পর্ব

সহমরণের প্রথাটি অনেক প্রাচীন। অনেক হিন্দু শাস্ত্রে সহমরণের দৃষ্টান্ত ও বিধান রয়েছে।

Read more